অপূর্ব ও নুসরাতের ‘যদি..কিন্তু..তবুও’

পাঁচ বছর আগে অর্থাৎ ২০১৫ সালে রোমান্টিক গল্পে ‘ছুঁয়ে দিলে মন’ নির্মাণ করে তুমুল সাড়া ফেলে দিয়েছিলেন নন্দিত নির্মাতা শিহাব শাহীন। প্রেম ভালোবাসার রোমান্টিক গল্পও যে ভিন্নভাবে উপস্থাপন করে নির্মাণে মুন্সিয়ানা দেখানো যায়, সেটাই করে দেখিয়েছিলেন এই নির্মাতা। সেই ছবির সাফল্যের অনেক বছর পর আবার তিনি আসছেন নতুন সিনেমা নিয়ে। এর নাম ‘যদি..কিন্তু..তবুও’।

ছবিটির মাধ্যমে প্রথমবার জুটি বাঁধছেন দুই পর্দায় জনপ্রিয় দুই অভিনয়শিল্পী জিয়াঊল ফারুক অপূর্ব ও নুসরাত ফারিয়া। ভিন্ন ভাবনায় দুই পর্দার শিল্পী নিয়েই ছক এঁকেছেন নির্মাতা। এরইমধ্যে শুটিং শুরু করার প্রস্তুতি সম্পন্নও করেছেন। গত দশদিন ধরে চলছে সিনেমাটির অনুশীলন পর্ব, আজও চলবে।

আগামীকাল ঢাকাতেই শুরু হচ্ছে সিনেমাটির শুটিং। প্রথমদিনের শুটিংয়ে অংশ নেবেন অপূর্ব ও ফারিয়া দুজনেই। এখানে দুইদিন শুটিং করার পর ১৩ মার্চ নির্মাতা পুরো টিম নিয়ে ছুটবেন কক্সবাজারে। সেখানে টানা কিছুদিন কাজ হবে। এরপর সেখান থেকে সিলেটে হবে কিছু অংশের কাজ। এরপর ঢাকার ভিতরে বিভিন্ন লোকেশনে হবে কিছু কাজ।

নির্মাতা শিহাব শাহীন বলেন, যেহেতু অনেকদিন পর সিনেমা বানাচ্ছি তাই সেটা নিয়ে একটা বিশাল প্ল্যান তো অবশ্যই আছে। কোন বিরতি ছাড়া মোট ২৬ টি লোকেশনে এই সিনেমার শুটিং করবো। এরমধ্যে এক লোকেশন থেকে অন্য লোকেশনে আসা-যাওয়ার সময়টা বাদ যাবে। আর বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনে অর্থাৎ মুজিব বর্ষে শুটিং করবো না, এদিন বন্ধ রাখবো। আর বাকি সময়টা শুটিং চলবে।

নতুন সিনেমা নির্মাণে এতটা সময় নেওয়ার কারণ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সময় নেওয়ার নানান কারণই রয়েছে। জীবিকা নির্বাহের জন্য নির্মাতাদের অনেক কিছুই করতে হয়। কিন্তু সিনেমা নির্মাণ করে জীবিকা নির্বাহের প্রশ্নে আটকে যেতে চাই নি। এখন যে পরিস্থিতি, নির্মাণ করলেও সেরকমভাবে লগ্নি ফেরত আসে না। একজন পরিচালকেরও তো চলতে হয়। সারা বছর খেঁটে একটা সিনেমা করার পর যদি সেটা লাভের মুখ না দেখে তাহলে তো চলা-ই মুশকিল হয়ে পড়ে।

খুব দ্রুতই সিনেমটির শুটিং শেষ করে আসছে ঈদুল ফিতরে এটি মুক্তি দিতে চান নির্মাতা। তিনি জানান, আসছে ঈদেই এটি মুক্তি পাবে। ভারতীয় ভিডিও স্ট্রিমিং সাইট জি-ফাইভে এটি দেখা যাবে। যেহেতু তারা প্রথমবার বাংলাদেশে মার্কেটিং করছে তাই এই সিনেমাটি মুক্তির পর অনলাইনে ফ্রিতেই দেখতে পারবেন দর্শকরা।

আর বড় পর্দায় মুক্তি পাবে কিনা সেটা তারাই ভালো বলতে পারবে। তারা যদি মনে করে যে পর্দায় দেখান উচিত তাহলে হয়তো সেটাই করবে।

সিনেমাটিতে চুক্তিবদ্ধ হওয়া প্রসঙ্গে অপূর্ব জানিয়েছিলেন, শিহাব শাহীনকে আমি গুরু মানি। তার কাছ থেকে অনেক কিছু শিখেছি। তার মুখে সিনেমার গল্পটা শোনার পর আমি একদম বাকরুদ্ধ হয়ে যাই। এই গল্পে কাজ করার লোভ সামলাতে পারিনি। আমার কাছে মনে হয়েছে, এটা মিস করা আমার পক্ষে একেবারেই সম্ভব না।

আপনার মন্তব্য দিন