অভিনেত্রী হতেই পৃথিবীতে আমার জন্ম

143

শোবিজ ডেস্ক: বাংলাদেশের সিনেমা ও টেলিভিশন নাটকের পরিচিত অভিনেত্রী সোহানা সাবা। দেশের পাশাপাশি কলকাতার সিনেমায়ও নাম লিখিয়েছেন। তার অভিনয় বরাবরই প্রশংসিত হয়েছে। সোহানা সাবা ক্ল্যাসিক্যাল নাচের তালিম নিয়েছেন প্রায় ১৪ বছর। অভিনয়ের পাশাপাশি নাচের শিক্ষকও তিনি। ১৯৮৫ সালে জন্ম নেয়া সোহানা সাবা স্কুল কলেজে পড়ার পর স্নাতক পড়েছেন ফ্যাশন নিয়ে।

তার মতে, খুব ছোটবেলা থেকে ক্যারিয়ার শুরু। নাচ, র‍্যাম্পে হাঁটা, কোরিওগ্রাফি। র‍্যাম্পে হাঁটার সময় যেসব ডিজাইনের কাপড় পড়ে হাঁটতাম তখন মনে হতো এর চেয়ে ভালো ডিজাইনতো আমিই করতে পারি। শুরুতে মায়ের ডিজাইন করা কাপড় করে র‍্যাম্পে হাঁটতেন তিনি। ‘বড়ো হতে হতে ডিজাইন করা শুরু করলাম এবং প্রশংসাও পেতে থাকলাম। এরপরে ইচ্ছে ছিলো চারুকলায় পড়বো কিন্তু তা আর হয়ে উঠেনি। পড়ে ফ্যাশন নিয়ে পড়ালেখা করলাম’।

কিন্তু ফ্যাশন নিয়ে কোন কাজ করেছেন কি-না জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি নিজের ডিজাইন নিজেই করি। অর্থাৎ ফ্যাশন ডিজাইনার সাবা অভিনেত্রী সোহানা সাবার ড্রেস বা সেট ডিজাইন করে। সেক্ষেত্রে প্রশংসাই পাই’। পাঁচ বছর বয়স থেকেই ক্লাসিক্যাল ডান্স শিখেছেন। ছায়ানট ও বাফা থেকে। মোট ১৪ বছরের নাচের তালিম। মডেল হিসেবেও কাজ করেছেন ‘আয়না’ চলচ্চিত্র করার আগে।

‘শুধুমাত্র একটাই টার্গেট ছিলো আমি যেনো পরিচিত হই। আমাকে যেনো লোকজন চিনে। এবং আমি অভিনয় করে যাই। তবে সব যা শিখেছি তার পেছনের গল্প হচ্ছে আমার মায়ের। মা নাচ ও গান করতেন। কিন্তু সেটি চালিয়ে যেতে পারেননি। আমাকে ওই স্বপ্ন থেকেই নাচে ভর্তি করা হলো আমাকে। আর আমার ভাইকে তবলায়। তবে মনে হয় অভিনেত্রী হতেই পৃথিবীতে আমার জন্ম’।

চলচ্চিত্রের মাধ্যমেই কিভাবে যাত্রা শুরু হলো জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি আসলে একটা টার্নিং পয়েন্ট খুঁজছিলাম। আয়নার প্রস্তাব যখন পাই তখন কলেজে পড়ি। তখন ছিলো অশ্লীল সিনেমার যুগ। যখন কবরী আপা প্রস্তাব দেন তখন আমি চাচ্ছিলামনা যে আমাকে নিক। কিন্তু উনি দুশো মেয়ের মধ্যে থেকে আমাকে নেন। পড়ে মনে হয়েছে সব মিলে ভালো কিছু হয়েছে। ওই সময় আমি ২৩টার মতো বাণিজ্যিক ছবিতে অভিনয়ের প্রস্তাব পেয়েছিলাম’।

আপনার মন্তব্য দিন